লন্ডন মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির লাইসেন্স বাতিল তালিকায় আছে শত শত কলেজ, আতঙ্কের মধ্যে বাংলাদেশী কয়েক হাজার শিক্ষার্থী

ইউকে বর্ডার এ্যাজেন্সী  শেষ পর্যন্ত বাতিল করলো  লন্ডন মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির মত নামকরা একটি  ইউনিভার্সিটির লাইসেন্স এর ফলে সংকটে পড়বে অন্যান্য কলেজের শিক্ষার্থীরা এতে প্রতীয়মান হয় যে, যেখানে লন্ডন মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটিই টিকে থাকতে পারলনা বাকী কলেজ গুলোতো প্রশ্নই আসে না৷ এ খবরটি আপনাদের জন্য নিচে দেয়া হলো

গত ৩০ অগাস্ট ২০১২, বৃহস্পতিবার  লণ্ডন মেট্রোপলিটান বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ভিসা লাইসেন্স’ বাতিল করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, যা ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাইরে থেকে ছাত্র আনার বাধ্যতামূলক একটি শর্ত। এ-বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ৩০,০০০ শিক্ষার্থীর অর্ধেকেরও বেশি এসেছে ব্রিটেইনের বাইরে থেকে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গিয়েছে, বাংলাদেশ, ভারত, চীন, পাকিস্থান-সহ অন্ততঃ ২,০০০ অ-ইউরোপীয় ছাত্রকে দুই মাসের মধ্যে ব্রিটেইন থেকে বহিষ্কার করা হতে পারে, যদি না তাঁরা এ-সময়ের মধ্যে অন্য কোন প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে পারেন।

এ-সংক্রান্ত কর্তৃপক্ষ ইউকে বর্ডার এ্যাজেন্সীর একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, “৬ মাস আগে আমরা সাংঘাতিক ব্যর্থতা চিহ্নিত করে মেট্রৌপলিটান বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘হাইলি ট্রাস্ট্রেড স্ট্যাটাস’ স্থগিত করেছিলাম। এখনও এর সমাধান-কল্পে ব্যবস্থা না নেওয়ায় তা এবার কেড়ে নেওয়া হয়েছে”।

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তাঁরা এ-অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য ‘নিরলসভাবে ইউকেবিএ’র সাথে কাজ করে যাচ্ছেন’। তবে ছাত্র-ছাত্রীরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। ন্যাশনাল ইউনিয়ন অফ স্টুডেন্টস্‌ এর প্রেসিডেন্ট লিয়াম বার্ণস্‌ বলেছেন, ‘এ-সিদ্ধান্ত কেবল লণ্ডন মেটের শিক্ষার্থীদের মধ্যেই নয়, সারা দেশের শিক্ষাঙ্গনেই আতঙ্ক সৃষ্টি করবে’।

২০০২ সালে লণ্ডনের দু’টো শতাব্দী-প্রাচীন বিদ্যায়তন নর্থ লণ্ডন ইউনিভার্সিটি ও গিল্ডহল ইউনিভার্সিটি একীভূত হয়ে লণ্ডন মেট্রৌপলিটান ইউনিভার্সিটি গঠন করে।

One thought on “লন্ডন মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির লাইসেন্স বাতিল তালিকায় আছে শত শত কলেজ, আতঙ্কের মধ্যে বাংলাদেশী কয়েক হাজার শিক্ষার্থী

Leave a Reply


SEO Powered By SEOPressor